মেনু নির্বাচন করুন
Text size A A A
Color C C C C
ফাইল

উপজেলা প্রশাসনের পটভূমি

মানচিত্রে কলারোয়া বলে কোন স্থান ছিল না। উপজেলা সদর বলে চিহ্নিত এ ক্ষুদ্র উপশহরটির সরকারি নাম ঝিকরা, মৌজা ঝিকরা,। অবশ্য পুরাতন রেজিষ্ট্রকৃত দলিলে একটি পরগণার নাম পাওয়া যায়, সেটি হল হোসেনপুর পরগণা। পৃথক হোসেনপুরেরও কোন অস্তিত্ব খুঁজে পাওয়া যায় না। যাই হোক স্থানটি এক সময় ২৪ পরগণা জেলার কলারোয়া হোসেনপুর নামক পরগণা ছিল। কলারোয়ার সুদূর ইতিহাস আমাদের হাতে না থাকলেও ঊনবিংশ শতাব্দীর মাঝামাঝি বৃটিশ শাসকদের কাছে কলারোয়া একটি গুরুত্বপূর্ন স্থান হিসেবে পরিচিত ছিল- এটা নিশ্চিত।

১৮৫১ খৃষ্টাব্দে সাতক্ষীরাকে যশোর জেলার চতুর্থ মহকুমা হিসেবে সৃষ্টি করা হয়। পরে ১৮৬৩ খৃষ্টাব্দে ২৪ পরগণা জেলা সৃষ্টি হলে সাতক্ষীরা মহকুমা ২৪ পরগণা জেলার অন্তর্ভূক্ত হয়। সাতক্ষীরা মহকুমা অতীত ২৪ পরগণা জেলার বসিরহাট মহকুমার অন্তর্গত ছিল। ১৮৫১ সালে সাতক্ষীরাকে বসিরহাট থেকে বিচ্ছিন্ন করে পৃথক মহকুমার মর্যাদা দেয়া হয়। বৃটিশ সরকার কতৃক ১৮৫১ সালে জানুয়ারী মাসে আবদুল লতিফ খান বাহাদুর ২৪ পরগণা জেলার অধীনে নবগঠিত সাতক্ষীরা নিম্নঞ্চল হওয়ায় যাতায়াত ও যোগাযোগ ব্যবস্থা অনুন্নত থাকায় এবং মহকুমা প্রশাসকের অফিস ও বাসভবন ও অন্যান্য ভবনের নির্মান কাজ উপযোগী না হওয়ায় সাতক্ষীরা মহকুমার হেড কোয়ার্টার কলারোয়াতে স্থাপন করা হয়। দীর্ঘ ১০ বৎসর যাবত মহকুমার সদর দফতর হিসেবে প্রশাসনিক কার্যক্রম চালানোর পর সাতক্ষীরার প্রভাবশালী জমিদারদের প্রচেষ্টায় ১৮৬১ খৃষ্টাব্দে মহকুমা সদর দফতর কলারোয়া থেকে সাতক্ষীরায় স্থানান্তরিত হয়।